ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল । Blood Sugar Levels Chart Bangla

ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল । Blood Sugar Levels Chart Bangla
বর্তমানে ডায়াবেটিস মেলিটাস রোগটি আমাদের একটি বড় সমস্যার কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অবস্থায় এই ডায়াবেটিস রোগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল Blood Glucose level। এটি রক্তে গ্লুকোজ লেভেল কত কি পরিমাপ রয়েছে সেটা আমাদের জেনে নেওয়ার দরকার রয়েছে। আজকের এই লেখায় ডায়াবেটিসের ব্যাপারে যে যে টপিকগুলি আলোচনা করা হয়েছে – ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল, ডায়াবেটিস কি (What Is Diabetes Bangla), ডায়াবেটিস মাপার নিয়ম, ডায়াবেটিস কিভাবে মাপা হয়, গ্লুকোজের মাত্রা মাপার একক

আপনারা যারা নিয়ে কিছু জানেন না তাদের Diabetes নিয়ে সংক্ষিপ্ত একটি ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করব, আসলে ডায়াবেটিস কি এবং বাড়িতে বসে সঠিক পদ্ধতিতে কিভাবে নির্ণয় করবেন সব কিছু জানতে পারবেন

ডায়াবেটিস কি (What Is Diabetes Bangla)

আমাদের শরীরে এক ধরনের হরমোন রয়েছে যার নাম ইনসুলিন, যার কাজ হল রক্তে শর্করা বা সুগার বা গুলুকজের মাত্রা বজায় রাখে

কিন্তু ইনসুলিন যখন অগ্নাশয় থেকে সঠিক পরিমানে নিঃসৃত হতে পারেনা, বা আমাদের কোষগুলো ইনসুলিনের উপর কোনো রেসপন্স করেনা তখন আমাদের রক্তে গ্লুকোজের পরিমান বেড়ে যায়। ফলে আমাদের যে রোগটি দেখা যায় তা হল Diabetes mellitus  যাকে আমরা ডায়াবেটিস বলে থাকি

এটি আবার মুলত তিন ধরনের হতে পারে।

  • Type 1 diabetes
  • Type 2 diabetes
  • Gestational diabetes

এখন আমরা ডায়াবেটিস মাপার বিষয়ে সব কিছু জেনে নেব

ডায়াবেটিস কিভাবে মাপা হয়

ডায়াবেটিস রোগীদের নিয়মিত রক্তে শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করা অত্যন্ত জরুরি। এতে রোগীর খাদ্যাভ্যাস, শরীরচর্চা ও ওষুধের দ্বারা রক্তে শর্করার মাত্রা কতটা নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে তা বোঝা যায়। তবে তার জন্য প্রতিবার হাসপাতাল যাওয়া চাইতে একটি গ্লুকোমিটার কেনা অনেক সাশ্রয়ী এবং ঝামেলা মু্ক্ত।

গ্লুকোমিটার নামের যন্ত্রটি ব্যবহার করে  আমরা বাড়িতে বসেই রক্তে শর্করার মাত্রা নির্ণয় করতে পারি। এই যন্ত্র ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতিও জানা থাকা দরকার।

ডায়াবেটিস মাপার নিয়ম

ডায়াবেটিস মাপার জন্য আমরা সাধারণত যেটি পরিমাপ করি তা হল Blood Sugar level তিনটি টেস্টের মাধ্যমে আমরা Blood Sugar level মাপতে পারি

১. Fasting Blood Sugar Test

সময় – খালি পেটে

কিভাবে করতে হয়

এক্ষেত্রে আমাদের ৭-৮ ঘণ্টা খালি পেটে থাকতে হয়। ওই সময় আপনি জল ছাড়া কিছু খেতে পারবেন না । সেজন্য সাধারণত রাত্রে বেলায় খাবার পর সকালে খালি পেটে টেস্ট করা জরুরী ।

২. Glucose Tolerance Test

সময় – খাবার ২ ঘণ্টা পর

কিভাবে করতে হয়

সাধারণত কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার খাওয়ার ১.৫-২ ঘণ্টা পর আপনাকে আপনার গ্লুকোজ লেভেল মাপতে হবে। এই টেস্টটি করতে গেলে সবচেয়ে ভালো সঠিক রেজাল্ট পাওয়ার পদ্ধতিটি হল প্রথমে আপনাকে প্রথমে Fasting Blood Sugar Test আপনাকে করতে হবে। এরপর খাবার খাওয়ার ২ ঘণ্টা পর  আপনাকে গ্লুকোজ লেভেল মাপতে হবে। তারপর নিচের তালিকা অনুযায়ী আপনি সঠিক অবস্থাটি নির্ণয় করতে পারবেন

৩. Random Blood Sugar Test

সময় – যেকোনো সময়

কিভাবে করতে হয়

এটার জন্য আপনাকে আগের দুটি টেস্টের মতো কোনো কিছুই করতে হবেনা। আপনি যেকোনো মুহূর্তে টেস্ট করতে পারেন

৪. Hemoglobin A1C

এই টেস্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি টেস্ট , এটিকে A1C টেস্টও বলা হয়ে থাকে । এটি সাধারণত আমাদের গত ২, ৩ মাসের average blood sugar level কে পরিমাপ করে। এটির সাহায্যে type 2 diabetes খুব সহজে নির্ণয় করা যায়

গ্লুকোমিটার ব্যবহারের সতর্কতা

সাধারণত অনেকেই Glucometer ব্যবহারের সময় অনেক ছোট খাটো ভুল করেন, যার কারণে তাদের রেজাল্টে অনেক ভুল রিডিং আসে। তাই এই যন্ত্র ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতিতে  ব্যাবহার করার কিছু নিয়ম জানা থাকা দরকার

  • গ্লুকোমিটারের সাহায্যে রক্তে সুগারের মাত্রা পরিমাপের আগে অবশ্যই হাত ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে ডেটল জাতীয় জীবাণুনাশক দিয়ে। কারণ হাত না ধুলে ফলাফল ভুল আসতে পারে
  • রক্তে শর্করার মাত্রা পরিমাপ করার সময় খাওয়ার ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টা পরেই মাপতে শুরু করেন অনেকেই। ফলে শর্করার মাত্রা বেশি দেখায় যন্ত্রটি। খাওয়ার পর রক্তে শর্করার মাত্রা মাপার আগে কমপক্ষে ২ ঘণ্টা অপেক্ষা করা উচিত
  • গ্লুকোমিটারের সুঁচ ফুটানোর আগে হাতে হাত ঘষে সামান্য গরম করে নিন কারন হাত ঠাণ্ডা থাকলে কিংবা রক্ত সঞ্চালনের সমস্যা থাকলে আঙ্গুল থেকে পর্যাপ্ত রক্ত বের নাও হতে পারে
  • শরীরে জলের অভাব থাকলে তা রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে, তাই সঠিক পরিমানে জল পান করা উচিত

গ্লুকোজের মাত্রা মাপার একক

সাধারণত blood glucose level  দুটি একক দিয়ে মাপা হয়ে থাকে –

  • মিলিমোল/ লিটার (mmol/l)
  • মিলিগ্রাম/ ডেসিলিটার (mg/dl)

গ্লুকোজ লেভেল বিচারে তিনটি অবস্থা

blood sugar level মাপার ক্ষেত্রে যে রেজাল্ট আমরা পাই সেই অনুযায়ী আমরা তিনটি অবস্থা নির্ণয় করতে পারি

  • Normal blood sugar levelএক্ষেত্রে আমাদের blood sugar level সাধারণ অবস্থায় থাকে
  • Prediabetes Stageprediabetes হল যখন আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা Normal blood sugar level এর চেয়ে বেশি। তবে এটি ডাক্তারের পক্ষে ডায়াবেটিস নির্ধারণের পক্ষে পর্যাপ্ত পরিমাণে নয়। তাই এটি হল ডায়াবেটিস পূর্বের স্টেজ। সাধারণত টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রায় সবসময় প্রিডায়াবেটিস থাকে
  • Diabetes Stageএটি ডায়াবেটিস অবস্থা। এখানে আপনার blood sugar level প্রিডায়াবেটিস স্টেজের তুলনায় অনেক বেশি থাকে

ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল

আপনি গ্লুকোমিটারের blood sugar level রেজাল্ট চেক এই টেবিল থেকে মিলিয়ে নিলেই বুঝতে পারবেন আপনি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত কিনা

  • blood sugar level মুলত দুটি একক দিয়ে মাপা হয়ে থাকে – মিলিমোল/ লিটার (mmol/l) এবং মিলিগ্রাম/ ডেসিলিটার (mg/dl)
  • টেবিলের বাঁদিকে রয়েছে কোন কোন সময়ে টেস্ট করেছেন যেমন – Fasting (খালি পেটে), After meal (খাবার দুই ঘণ্টা পর), Random(যেকোনো সময়)
  • এবং টেবিলের উপরে রয়েছে আপনি কোন অবস্থায় রয়েছেন – নরম্যাল (Normal), ডায়াবেটিস পূর্বের স্টেজ (Prediabetes), ডায়াবেটিস (Diabetes)

ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল । Blood Sugar Levels Chart Bangla

ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল ?

সাধারণত 140 mg/dL (7.8 mmol/L) এর চেয়ে কম রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক হিসেবে বিবেচ্য। দুই ঘন্টা পর 200 mg/dL (11.1 mmol/L) এর বেশি রিডিং ডায়াবেটিস নির্দেশ করে। 140 এবং 199 mg/dL (7.8 mmol/L এবং 11.0 mmol/L) এর মধ্যে একটি রিডিং – ডায়াবেটিকস এর পূর্ব লক্ষণ নির্দেশ করে।

বাচ্চাদের ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল ?

অনেকেই হয়তো জানে না: শিশুদেরও ডায়াবেটিকস ব্যধী হয়। এদের রোগের ধরণ ভিন্ন। অর্থাৎ, বাচ্চাদের সাধারণত টাইপ-১ ডায়াবেটিকস হয়। ৫ – ১১ বছর বয়সী শিশুদের জন্য, স্বাভাবিক রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা 70 থেকে 150mg/dL। উপবাসের রক্তে শর্করা স্বাভাবিক চিনির মাত্রার নিম্ন প্রান্তের কাছাকাছি হতে হবে। খাবারের পরে এবং শোবার আগে রক্তে শর্করা উপরের প্রান্তের কাছাকাছি হওয়া উচিত। রাতের বেলায় 120mg/dL এর নিচে গ্লুকোজের মাত্রা চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন।

খালি পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল ?

খালি পেটে একজন ব্যক্তির ডায়াবেটিকস রিডিং সাধারণত ১০০ -এর নিচে হয়ে থাকে। এবং ডায়াবেটিকস রোগের প্রাথমিক লক্ষ্য হলো: খালি পেটে ৭০ থেকে ১৩০ রিডিং এর মধ্যে পড়া।
খাওয়ার পর ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল
ডায়াবেটিসবিহীন একজন ব্যক্তির রিডিং সাধারণত খালি পেটে ১০০ এর নিচে এবং খাওয়ার দুই ঘন্টা পরে ১৪০ এর নিচে থাকে। আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের মতে, ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য প্রাথমিক লক্ষ্য হল খালি পেটে ৭০ থেকে ১৩০ এর মধ্যে পড়া এবং খাবার শুরু করার দুই ঘন্টা পরে ১৮০ এর কম।

ভরা পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল ?

ভরা পেটে নরমাল ডায়াবেটিকস এর লক্ষণ: সাধারণত খাবারের পরে ভরা পেটে দেহের রক্তে সুগার (চিনি উপাদান) ‘র মাত্রা সামান্য বেড়ে যাওয়াটা অস্বাভাবিকের কিছু নয়। কিন্তু এই সুগারের মাত্রা যদি ৭.৮ পয়েন্ট ( mmol/l ) ‘এর থেকে বেশি পরিমাণে বেড়ে যায় তাহলে এটাকে প্রি-ডায়াবেটিস বা ডায়াবেটিকসের পূর্ব লক্ষণ বলা যায়। এবং ১১.১১ পয়েন্টের চাইতে অধিক হলে, তখন ডায়াবেটিসের যথাযুক্ত মাত্রায় চলে যায়।

ডায়াবেটিস কত হলে বেশি ?

আমেরিকান ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশনের নির্দেশনা অনুযায়ী, HBA1C এর মান 5.6 এর কম হলে স্বাভাবিক বলে মনে করা হয়। কিন্তু যদি এটি 7.5 এর বেশি হয় তবে এটি ডায়াবেটিক হিসাবে বিবেচিত হয়। এই মান 5.6 এবং 7.5 এর মধ্যে হলে প্রি-ডায়াবেটিস বা প্রাক-ডায়াবেটিস বলা উচিত।

ডায়াবেটিস কত হলে বিপদ ?

The University of Michigan এর মতে, ডায়াবেটিকস এর মাত্রা 300 mg/dL-এর উপরে হলে বিপজ্জনক হতে পারে। আপনার যদি পরপর 300 mg/dL এর দুই বা তার বেশি মাতায় / রিডিং থাকে তাহলে অবিলম্বে আপনার বিশ্বস্থ ডাক্তারকে জানানোর পরামর্শ রইলো।

ডায়াবেটিস মাপার সঠিক সময়

ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞদের মতান্তরে, খাদ্যদ্রব্য গ্রহণের প্রায় দুই ঘন্টা (02 hours) পর, ডায়াবেটিস টেস্ট করানো বা মাপা উচিত। অনেকেই আছেন, যারা নিয়মিত ডায়াবেটিকস টেস্ট করাতে ভুলে যান। অথবা অবহেলা করে থাকেন, তাদের জন্য সতর্কতামূলকভাবে বলছিঃ নিয়ম মেনে টেস্ট না করালে, আপনি হয়তবা সঠিকভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন না। সুতরাং, নিয়মিত টেস্ট করালেই ভালো।

পড়ুন - ডায়াবেটিস আসলে কি এবং কিভাবে নিয়ন্ত্রন করা যায়